কওমি মাদ্রাসা সনদের সরকারী স্বীকৃতির দাবী আদায় হওয়ায় শোকরানা ও দোয়া মাহফিল

Back to Blog

কওমি মাদ্রাসা সনদের সরকারী স্বীকৃতির দাবী আদায় হওয়ায় শোকরানা ও দোয়া মাহফিল

পহেলা বৈশাখে মঙ্গল শোভাযাত্রার

নির্দেশনা বাতিল করতে হবেঃ

            ….কেন্দ্রীয় সভাপতি

ঢাকা, ১২ এপ্রিল ২০১৭ঃ ইসলামী ছাত্র মজলিসের কেন্দ্রীয় সভাপতি মুহাম্মদ আজিজুল হক বলেছেন, মঙ্গল শোভাযাত্রা বাঙ্গালী সংস্কৃতি অথাব মুসলিম সংস্কৃতি কোনটিরই  অংশ নয়। তাই মঙ্গল শোভাযাত্রার নামে  বিজাতিয় সংস্কৃতি এদেশের জনগণের উপর চাপিয়ে দেয়ার পরিণাম ভাল হবে না। সরকার সারাদেশের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে আগামী পহেলা বৈশাখে মঙ্গল শোভাযাত্রার যে নির্দেশনা পাঠিয়েছে তা অবিলম্বে প্রত্যাহার করতে হবে। ইসলামী ছাত্র মজলিসের ১৩ দফা শিক্ষা দাবীর অন্যতম- কওমি মাদ্রাসা সনদের সরকারী স্বীকৃতির দাবী সরকার মেনে নেয়ায় ছাত্র মজলিস ঢাকা মহানগরী আয়োজিত এক শোকরানা ও দোয়া মাহফিলে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

আজ বাদ আসর পুরানা পল্টনস্থ মজলিস মিলনায়তনে ঢাকা মহানগরী দক্ষিনের সভাপতি মনসুরুল আলম মনসুরের সভাপতিত্বে ও ঢাকা মহানগরী উত্তরের সভাপতি মনির হোসাইনেরন পরিচালনায় অনুষ্ঠিত  শোকরানা ও দোয়া মাহফিলে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য পেশ করেন ইসলামী ছাত্র মজলিসের সাবেক কেন্দ্রীয় সভাপতি অধ্যাপক মুহাম্মদ আবদুল জলিল, তাওহিদুল ইসলাম তুহিন, মাওলানা আহমদ আলী কাসেমী, এডভোকেট মাওলানা শায়খুল ইসলাম, ছাত্র মজলিসের সেক্রেটারী জেনারেল ইলিয়াস আহমদ, কবি খালেদ সানোয়ার প্রমুখ।

ছাত্র মজলিসের কেন্দ্রীয় সভাপতি মুহাম্মদ আজিজুল হক বলেন, ১৯৯২ সালের ২৯ মার্চ রাজধানীর ঢাকা জেলা ক্রীড়া সমিতি মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্র মজলিসের কলেজ প্রতিনিধি সম্মেলনে ১৩ দফা ঐতিহাসিক শিক্ষা দাবীর মধ্যে অন্যতম ছিল কাওমি মাদ্রাসা শিক্ষার সরকারী স্বীকৃতির দাবী। ইসলামী ছাত্র মজলিসের তৎকালীন কেন্দ্রীয় সভাপতি মাওলানা আবদুল কাদির সালেহর সভাপতিত্বে  ও সেক্রেটারী জেনারেল এডভোকেট জাহাঙ্গীর হোসাইনের পরিচালনায় অনুষ্ঠিত ঐ সম্মেলনে প্রধান অতিথি ছিলেন খেলাফত মজলিসের তৎকালীন অভিভাবক পরিষদের চেয়ারম্যান মরহুম শায়খুল হাদিস আল্লামা আজিজুল হক। সম্মেলন উদ্বোধন করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগের তৎকালীন চেয়ারম্যান মরহুম অধ্যাপক আ ন ম রঈস ঊদ্দিন।  দীর্ঘ ২৫ বছর পর আজ সে দাবী বাস্তবায়িত হল। ছাত্র মজলিসের ১৩ দফা শিক্ষা দাবীর অন্যান্য সকল দাবী আদয়ে আমাদের ধারাবাহিকভাবে প্রচেষ্টা অব্যাহত রাখতে হবে। এরপর ২০০০ সালে অনুষ্ঠিত রাজধানীর গোলাপবাগ মাঠে অনুষ্ঠিত ঐতিহাসিক ছাত্র কনভেশনে ঐ ১৩ দফা শিক্ষা দবীকে আরো জোরালোভাবে জাতির সামনে তুলে ধরা হয়। এরপর আস্তে আস্তে ১৩ দফা শিক্ষা দাবীর অন্যতম- কওমি মাদ্রাসা সনদের সরকারী স্বীকৃতির দাবী গণদাবীতে পরিণত হয়। এবং  বেফাক’র সভাপতি আল্লামা আহমদ শফির নেতৃত্বে  দেশের সকল শীর্ষ ওলামায়েকেরাম সম্মিলিতভাবে এবং ঐকমত্যের ভিত্তিতে কওমি মাদ্রাসা সনদের সরকারী স্বীকৃতির দাবী আদায়ে ঐক্যবদ্ধ হন।

ছাত্র মজলিসের সাবেক কেন্দ্রীয় সভাপতি অধ্যাপক মুহাম্মদ আবদুল জলিল বলেন, ইসলামী ছাত্র মজলিসের মূল লক্ষ্য আল্লাহর জমিনে আল্লাহর দ্বীন প্রতিষ্ঠা এবং আল্লহর সন্তুষ্টি অর্জনের মহান উদ্দেশ্য অর্জন না হওয়া পর্যন্ত ইসলামী ছাত্র মজলিসের নেতা-কর্মীদের সকল বাঁধা প্রতিবন্ধকতা মোকাবেলা করে বিরামহীনভাবে কাজ চালিয়ে যেতে হবে।

Share this post

Back to Blog